fbpx
বাংলাদেশবিজ্ঞান ও প্রযুক্তিশিক্ষা

ফেসবুকে সাইবার বুলিংয়ের প্রতিরোধের উপায়

ইন্টারনেটের ব্যবহার প্রতিদিন যেভাবে বেড়ে চলেছে তার সাথে ইন্টারনেটে ভুলের ব্যবহার বেড়ে চলেছে এবং তৈরি হচ্ছে অনিরাপত্তা। তবে একটু সর্তকতা অবলম্বন করলে নিরাপদ থাকা সম্ভব। তার জন্য ইন্টারনেট এর সঠিক ব্যবহার সম্পর্কে জানতে হবে।নিজের সোশ্যাল মিডিয়ায় ব্যবহারকৃত প্রোফাইল নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে। প্রোফাইলের ফ্রেন্ড লিস্টে বা সন্দেহজনক কোন আইডি আছে কিনা তা নিয়ে সতর্ক থাকতে হবে। যদি কোন আইডিকে সন্দেহজনক মনে হয় তাহলে সেটার অ্যাবাউট সেকশন এবং বেশি কিন্তু চেক করে নিতে হবে। যদি ফেক আইডি মনে হয় তাহলে তা আনফ্রেন্ড বা আনফলো করে দিতে পারেন বা চাইলে রিপোর্ট করতে পারেন। অনলাইনে কোনরকম হয়রানির শিকার হলে তৎক্ষণাৎ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। অন্যায় কারী কে প্রশ্রয় দেওয়া যাবে না। সোশ্যাল মিডিয়াতে ব্যক্তিগত তথ্য পাবলিক করে রাখা যাবে না। এটি পরবর্তীতে হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।সন্দেহজনক কোন লিংকে প্রবেশ করা যাবে না। কেউ যদি কোনো কারণ ছাড়াই কোন লিংক দিয়ে তাতে প্রবেশ করতে বলে তাহলে তাতে প্রবেশ করা যাবে না। এতে করে সোশ্যাল মিডিয়ায় একাউন্টের ক্ষতি হতে পারে এবং আপনার সব গোপন তথ্য হ্যাকারদের কাছে চলে যেতে পারে।নিজের সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্টকে নিরাপদ রাখার জন্য একটি শক্তিশালী পাসওয়ার্ড ব্যবহার করতে হবে। দরকার পড়লে টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন’ চালু করে রাখতে হবে।অভিভাবকদের সতর্ক থাকতে হবে তাদের সন্তান নিয়ে। তারা ইন্টারনেট এর সঠিক ব্যবহার করছে কিনা তা নিয়ে তাদের নিয়ন্ত্রণ থাকতে হবে। নিজেকে সতর্ক রাখতে হবে এবং অন্যকেও সতর্ক করতে হবে। এর মাধ্যমে আমরা সাইবার বুলিংয়ের মতো অপরাধকে ঠেকিয়ে রাখতে পারবো।

আরো দেখুন

সমবিষয়ক আর্টিকেল

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরো দেখুন
Close