fbpx

প্রাচীন যুগ বাংলা সাহিত্য

আসসালামু আলাইকুম , আমরা আজকে আপনাদের জন্য বাংলা সাহিত্যের যুগবিভাগ নিয়ে আলোচনা করবো। যা বাংলা সাহিত্যের জন্য জানা অত্যাবশ্যকীয়। চলুন কথা না বাড়িয়ে শুরু করা যাক। আজেকের আলোচ্য বিষয়ঃ

বাংলা সাহিত্যের যুগবিভাগঃ

বাংলা সাহিত্যের যুগবিভাগকে বিভিন্ন পন্ডিত গণ একে ৩ টি ভাগে ভাগ করেছেন। তবে বাংলা সাহিত্যের যুগ বিভাগ ৩ টি। যথাঃ 

১. প্রাচীন যুগ 

২. মধ্য যুগ 

৩. আধুনিক যুগ 

প্রাচীন যুগ 

চলুন জেনে আসি প্রাচূন যুগ নিয়ে বিস্তারিত সকল জানা অজানা সকল তথ্য।  বাংলা সাহ্যিতের প্রাচীন যুগ বলতে ৬৫০ সাল হতে ১২০০ সালকে বুঝিয়ে থাকে। এক কথায় আপনি বলতে পারেন অমুসলিমদের রাজত্বকাল। 

১. প্রাচীন যুগ:-৬৫০-১২০০ সাল পর্যন্ত যুগকে প্রাচীন যুগ বলা হয়। প্রাচীন যুগের বাংলা সাহিত্যের একমাত্র সাহিত্যিক নিদর্শন চর্যাপদ। আপনি কি জানেন চর্যাপদ কি ? 

চর্যাপদ হলো বাংলা সাহিত্যের একমাত্র আদি নির্দশন  যার  আগে কোন সাহিত্যিক নিদর্শন  পাওয়া যায় না।  এটি একটি সাহিত্যিক পুঁথি।  চর্যাপদ রচনা করেন বৌদ্ধ সহজিয়ারা বা  বৌদ্ধ সাধকরা।  বাংলা সাহিত্যের চর্যাপদ  আবিষ্কার করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এর অধ্যাপক হরপ্রসাদ শাস্ত্রী। বাংলা সাহিত্যে তার অবদান অপরিসীম। তিনি চর্যাপদ আবিষ্কার করার জন্য ৩ বার নেপাল এ যান । তিনি ১৯০৭ সালে নেপালের রাজ দরবার পুঁথিশালা বা রাজকীয় লাইব্রেরী থেকে এই কাব্য গ্রন্থটি আবিষ্কার করেন। তিনি এই গ্রন্থের বেশ কিছু পৃষ্টা তখন ছিল না। 

আপনি কি জানেন বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন যুগ থেকে বিসিএস পরীক্ষায় ২ নম্বর থাকে । তাই আপনি যদি এই পোষ্টটি পড়েন তাহলে আশা করা যায় বাংলা প্রাচীন যুগ বিসিএস পরীক্ষায় আপনার ২ নম্বর কমন পড়বে। 

প্রাচীন যুগের ইতিহাসঃ প্রাচীন যুগের সাহিত্যেক নিদর্শন চর্যাপদ বাংলা থেকে নেপালে পাওয়া যাওয়ার কারণ কি জানেনঃ

বাংলায় পাল আমলের পর সেন আমলে বাংলায় যুদ্ধবিদ্রোহ এর কারণে বাংলা থেকে এই গ্রন্থটি তারা তাদের সঙ্গে করে নিয়ে যায়। আর সেই সঙ্গে তারাও চলে যায়। চর্যাপদে মোট পদকর্তা মোট ২৩ জন মতান্তরে ২৪ জন। মোট কবিতা বা পদ সংখ্যা ৫০ মতান্তরে ৫১ টি।  তবে এর মধ্যে ১ টি পদ পাওয়া যায়নি। ৪৭ নম্বর পদটি পাওয়া যায়নি। 

মোট সাড়ে ৪৬ টি পদ পাওয়া যায় সর্ম্পূণ। বাংলা সাহিত্য বিসিএস পরীক্ষায়  

প্রতিবছর ২ নম্বর এসে থাকে। আর যার জন্য প্রাচীন যুগ ভালোভাবে জানা জুরুরি। বাংলা সাহিত্যে প্রাচীন যুগ এর সকল বিষয়গুলো জানতে আপনাকে আরো পড়তে হবে। 

বাংলা সাহিত্যের আদি নির্দশন চর্যাপদ প্রকাশ করা হয় ১৯১৬ সালে। এ সময় এর নাম দেওয়া হয় হাজার বছরের বৌদ্ধ গান ও দোহা। চর্যাপদ এ সাধারন মানুষের জীবন যাপন এর কথা তুলে ধরেছেন। চর্যাপদ এ মোট ৬ টি প্রবাদ প্রবচন রয়েছে। চর্যাপদ এ তৎকালীন সময়ের সামাজিক অবস্থার চিত্র পাওয়া যায়। 

চর্যাপদ এ আদি কবি লুই পা। চর্যাপদ এ একমাত্র মহিলা কবি কুক্করি পা। ভুসুকা পা নিজেকে বাঙালি কবি বলে তার কবিতায় দাবি করে। তৎকালীন সময়ে মেয়েরা দিবসে বা দিনে বাহিরে যেতে ভয় পেত।অথচ রাতের বেলায় পরপুরুষের সাথে কামনায় মিলিত হয়ত। কবি তাই বলেছেঃ

দিবসী বহুড়ী , কাউহী ভয় পায় 

রাত্রি হইলে কামরু যায়। 

এর দ্বারা সামাজিক অবক্ষয় এর চিত্র ফুটে তুলেছেন কবি।  

২. মধ্যযুগ:-১২০১-১৮০০ সাল পর্যন্ত যুগকে মধ্যযুগ বলা হয়। মধ্য যুগে বেশকিছু সাহিত্যিক নিদর্শন পাওয়া যায়।১২০০-১৩৫০ সাল পর্যন্ত যুগকে অন্ধকার যুগ বলা হয়। মধ্যযুগে বেশ কিছু সাহিত্যিক নিদর্শন এর মধ্যে উল্লেখ্য যোগ্য:- শ্রীকৃষ্ণ কীর্তন, মঙ্গলকাব্য, অনুবাদ সাহিত্য, নাথ সাহিত্য, মর্সিয়া সাহিত্য, বৈষ্ণব সাহিত্য, কবিয়াল ও শায়ের, লোকসাহিত্য এবং আরাকান রাজসভার সাহিত্য।

৩. আধুনিক যুগ:-১৮০১- বর্তমান সময়

আধুনিক যুগে আবার দুই ভাগে ভাগ করা যায়।

ক. প্রথম পর্যায় ১৮০১-১৮৬০ সাল পর্যন্ত।

খ. দ্বিতীয় পর্যায়১৮৬০- বর্তমান পর্যন্ত

বাংলা সাহিত্যের যুগ বিভাগ,প্রাচীন যুগ
প্রাচীন যুগ
বাংলা সাহিত্যের যুগ বিভাগকে

বাংলা সাহিত্যের যুগবিভাগ

ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাগোষ্ঠী হতে বাংলা ভাষার উৎপত্তি। আজ থেকে ৫০০০ বছর পূর্বে ইন্দো-ইউরোপীয় হতে বাংলা ভাষা কালক্রমে রূপান্তরিত হয়ে বাংলা ভাষাতে এসেছে। ইন্দো-ইউরোপীয় ভাষাগোষ্ঠীর প্রধানত শাখা ২ টি।

কিন্তু ভাষাগোষ্ঠীর শাখা দুটি হলো:- কেন্তুম এবং শতম।

বিসিএস প্রিলিমিনারিতে প্রাচীন যুগ এবং মধ্যযুগ থেকে পাঁচ নম্বর থাকে।

আর বাকি ১৫ নাম্বার থাকে আধুনিক যুগ থেকে।

আমি আবার আলোচনা করব প্রাচীন যুগ। বিসিএস পরীক্ষায় এখান থেকে প্রতিবারই ২ নাম্বার থাকেই। প্রাচীন যুগ সম্পর্কে আমাদেরকে ভালোভাবে জানতে হবে।

প্রাচীন যুগের পোস্টটি পড়তে নিচে ক্লিক করুন:-

আরো বিস্তারত জানতে এই পোষ্টটি পড়তে পারেনঃ 

প্রাচীন যুগের ইতিহাস,
প্রাচীন যুগের সময়কাল,
প্রাচীন যুগ কাকে বলে,
প্রাচীন যুগ বিসিএস,
মধ্যযুগের বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস pdf,
বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস প্রাচীন যুগ pdf,
বাংলা সাহিত্যের ইতিহাস ২,
প্রাচীন যুগের বৈশিষ্ট্য,

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button